২২শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ রাত ১:৪৫

নৌকা প্রতীক প্রত্যাশী আওয়ামী লীগ নেতাকে পেটালেন মন্ত্রীর এপিএস!

বার্তা ডেক্স:
  • আপডেট সময়ঃ সোমবার, জুলাই ১০, ২০২৩,
  • 97 পঠিত

 

লালমনিরহাট প্রতিনিধি

লালমনিরহাটের আদিতমারীতে সমাজকল্যাণ মন্ত্রীর সামনে বর্ধিত সভা থেকে নজরুল ইসলাম মৃধা নামে এক নেতাকে পিটিয়ে বের করে দেয়ার অভিযোগ উঠেছে।
সোমবার বিকালে আদিতমারী উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে উপজেলা আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভায় এ ঘটনা ঘটে।

লাঞ্চিত নজরুল ইসলাম মৃধা টানা দুই বারের উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ন সম্পাদক ও সাবেক ছাত্রনেতা। তিনি একটি বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, উপজেলা আওয়ামীলীগকে সুসংগঠিত করতে বর্ধিত সভার আয়োজন করে আদিতমারী উপজেলা আওয়ামী লীগ। বিকেলে উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোহাম্মদ আলীর সভাপতিত্বে বর্ধিত সভা শুরু হয়। সভায় উপস্থিত ছিলেন, লালমনিরহাট ২ আসনের সংসদ সদস্য ও সমাজকল্যাণ মন্ত্রী নুরুজ্জামান আহম্মেদ, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য সাবেক এমপি অ্যাডভোকেট সফুরা বেগম রুমি ও জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মন্ত্রীপুত্র রাকিবুজ্জামান আহম্মেদ।

বর্ধিত সভা চলাকালীন হঠাৎ কতিপয় নেতাকর্মী মঞ্চে মন্ত্রীর পিছনে বসে থাকা উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ন সম্পাদক নজরুল ইসলাম মৃধাকে টেনে হেচরে মারপিট দিয়ে মঞ্চ থেকে নামিয়ে দেয়। এ সময় তুমুল হট্টগোল বাঁধে। পুলিশী হস্তক্ষেপে আওয়ামী লীগ নেতা নজরুল ইসলামকে বাহিরে নেয়া হয়। এতে তার মুজিব কোর্ট ছিড়ে দেয়া হয় এবং বেধম মারপিটও করা হয় বলে লাঞ্চিত নেতা নজরুল ইসলাম মৃধা অভিযোগ করেন।

তাৎক্ষনিক উপস্থিত গণমাধ্যমকর্মীদের সামনে ঘটনার ব্রিফিং দেয়ায় পুনরায় ওই নেতাকর্মীরা নজরুল ইসলাম মৃধাকে ধাওয়া দিলে তিনি স্থানীয় পুলিশ সদস্যের বাসায় ঢুকে রক্ষা পান।

লাঞ্চিত আওয়ামী লীগ নেতা নজরুল ইসলাম মৃধা সাংবাদিকদের বলেন, উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ন সম্পাদক হিসেবে দাওয়াত পেয়ে বর্ধিত সভায় মন্ত্রীর পিছনের আসনে বসেছিলাম। হঠাৎ মন্ত্রীর এপিএস মিজানুর রহমান মিজানের নেতৃত্বে কতিপয় উচ্ছৃঙ্খল হাইব্রীড নেতাকর্মী মন্ত্রীর সামনে আমাকে পিটিয়ে মুজিব কোর্ট ছিড়ে দিয়ে মঞ্চ থেকে নামিয়ে দিয়েছে।

বর্ধিত সভার বিষয়টি গনমাধ্যমকর্মীদের ব্রিফিং করায় দ্বিতীয় বার আক্রমণ করে। আমি নৌকা প্রত্যাশী হয়ে পোষ্টার সাটিয়ে গনসংযোগ করেছি। এটাই আমার অপরাধ। নৌকার মালিক শেখ হাসিনা। আমি চাইতেই পারি, দেয়ার মালিক প্রিয় নেত্রী। এ কারণে মন্ত্রী মহোদয়ের সামনে তার এপিএস মিজান আমাকে পিটিয়েছে। বিষয়টি সিনিয়র নেতাদের অবগত করা হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেন তিনি।

সমাজকল্যাণ মন্ত্রী ব্যাক্তিগত সহকারী কর্মকর্তা (এপিএস) মিজানুর রহমান মিজান এ বিষয়ে মোবাইলে কথা বলতে অপরাগতা প্রকাশ করেন।

বর্ধিত সভার সভাপতি উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোহাম্মদ আলী বলেন, কতিপয় নেতাকর্মী আপোষে নজরুল ইসলাম মৃধাকে মঞ্চ থেকে নামিয়ে নিয়েছে। তবে হলরুমে হট্টগোল হয়নি। হলে বাহিরে হতে পারে।

 

সংবাদটি শেয়ার করুন ...

এই বিভাগের আরো সংবাদ...
© All rights reserved © ২০২৩ স্মার্ট বরিশাল
EngineerBD-Jowfhowo