২৫শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ দুপুর ২:৫২

সাদিকপন্থি পরিবহন শ্রমিক নেতা ইউনিয়ন থেকে বহিষ্কার

বার্তা ডেক্স:
  • আপডেট সময়ঃ মঙ্গলবার, জুলাই ১৮, ২০২৩,
  • 189 পঠিত

অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে বরিশাল জেলা সড়ক পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক ফরিদ হোসেন সরদারকে মঙ্গলবার ইউনিয়ন থেকে আজীবন বহিষ্কার করা হয়েছে। প্রতিপক্ষ শ্রমিক নেতারা ওই অভিযোগ তোলেন। ফলে বরিশাল নথুল্লাবাদ কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনালের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে নতুন করে অস্থিরতা দেখা দিয়েছে।

বহিষ্কৃত ফরিদ মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও বিদায়ী সিটি মেয়র সেরনিয়াবাত সাদিক আবদুল্লাহ’র অনুসারী। তাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগ তোলা শ্রমিক নেতারা টার্মিনালের নতুন নিয়ন্ত্রক বাস মালিক গ্রুপের সভাপতি ও মহানগর শ্রমিক লীগের সভাপতি আফতাব হোসেনের পক্ষে কাজ করেন। সম্প্রতি সিটি নির্বাচনে বরিশাল জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি পার্বত্য শান্তি চুক্তি বাস্তবায়ন কমিটির আহবায়ক মন্ত্রী আবুল হাসানাত আব্দুল্লাহ ‘র আপন ছোট ভাই আবুল খায়ের আবদুল্লাহ খোকন সেরনিয়াবাত বরিশাল সিটির নৌকার মনোনীত প্রার্থী হয়ে মেয়র নির্বাচিত হলে আফতাব হোসেন বাস মালিক গ্রুপের সভাপতি হয়ে পুরো টার্মিনালের নিয়ন্ত্রণ নেন।

শ্রমিক ইউনিয়নের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি সৈয়দ শাহাদত হোসেন লিটন জানান, সাদিকপন্থি শ্রমিক নেতা ফরিদ শ্রমিক কল্যাণ ফান্ড, দূরপাল্লার রুটের সার্ভিস চার্জ, শ্রমিক ইউনিয়নের স্টল ও কাউন্টারের জামানত এবং ভাড়ার টাকা আত্মসাৎ করেছেন। তা ছাড়া বিএমএফ বাসের জামানত ও ভাড়ার টাকা এবং স্বাক্ষর জাল করে ব্যাংক এফডিআরের টাকা আত্মসাৎ ও শ্রমিক কার্ড বিক্রি করেছেন। গত ৫ জুলাই সাধারণ শ্রমিকরা সভা করে ফরিদের প্রতি অনাস্থা জানিয়েছেন। অভিযোগের জবাব চেয়ে সাত দিনের সময় দিয়ে তাঁকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হয়েছিল। গতকাল শ্রমিক ইউনিয়নের সভায় সংখ্যাগরিষ্ঠের মতামতে তাঁকে ইউনিয়ন থেকে আজীবন বহিষ্কার করা হয়েছে।

লিটন জানান, ফরিদ এক সময় টার্মিনালে ফেরি করে কসমেটিকস পণ্য বিক্রি করতেন। ২০১৬ সালের নির্বাচনে এক নেতার প্রভাব খাঁটিয়ে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জেলা সড়ক পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক হন। ইউনিয়নের টাকা আত্মসাৎ ও টার্মিনালে চাঁদাবাজি করে তিনি অনেক সম্পদের মালিক হয়েছেন।

তবে সব অভিযোগ অস্বীকার করে ফরিদ বলেন, শ্রমিক ইউনিয়নের বর্তমান কমিটি অবৈধ। তাই এই বহিষ্কারাদেশের কোনো বৈধতা নেই। অর্থ আত্মসাতের কোনো প্রমাণ তারা দেখাতে পারবেন না। তাঁর দাবি, তিনি ২০০৩ সাল থেকে প্রতিষ্ঠিত কসমেটিকস ব্যবসায়ী।

সড়ক পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের সর্বশেষ নির্বাচন হয় ২০১৬ সালের ডিসেম্বরে। তিন বছর মেয়াদি কমিটির মেয়াদ শেষ হয় ২০১৯ সালে। মেয়র সাদিকের একক আধিপত্যের যুগে নির্বাচন ছাড়াই কমিটি বহাল রেখে ফরিদ টার্মিনালের অন্যতম নিয়ন্ত্রক ছিলেন। গত ১২ জুন সিটি নির্বাচনে আবুল খায়ের আবদুল্লাহ মেয়র নির্বাচিত হওয়ার পর একক আধিপত্য হারান সাদিক। তাঁর নিয়ন্ত্রিত বাস টার্মিনাল, লঞ্চঘাট, হাট-বাজার একে একে দখল করে নেন নবনির্বাচিত বিসিসি’র মেয়র খায়েরপন্থিরা।

 

সংবাদটি শেয়ার করুন ...

এই বিভাগের আরো সংবাদ...
© All rights reserved © ২০২৩ স্মার্ট বরিশাল
EngineerBD-Jowfhowo