২৫শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ দুপুর ২:১১

বিসিসি নির্বাচনে আসছে নতুন চমক ! মেয়র প্রার্থীর তালিকায় কামালপুত্র রুপন

মেহেদী হাসান খাঁন :-
  • আপডেট সময়ঃ বৃহস্পতিবার, মার্চ ৩০, ২০২৩,
  • 221 পঠিত

বরিশাল সিটি করপোরেশন নির্বাচনের ঘোষণা দিয়েছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে যে পাঁচটি সিটি করপোরেশনের নির্বাচন হবে, তার একটি বরিশাল সিটি। মে থেকে জুনের মধ্যে এ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে বলে জানা গেছে । দেশের রাজনৈতিক বড় দুটি দল হচ্ছে বর্তমান ক্ষমতাসীন দল আঃলীগ ও জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি।এবার বিএনপি নির্বাচনে আসা না আসার শংকা থাকায় এ নির্বাচন নিয়ে এখন পর্যন্ত মানুষের মধ্যে তেমন আগ্রহ নেই। তবে বিএনপির মতো বড় দল এ নির্বাচনে অংশ নেবে কি না, তা নিয়ে কৌতূহল আছে সাধারণ জনগনের কাছে ।তবে বিএনপি নির্বাচনে না আসলেও থেমে নেই তাদের কূটকৌশল। বরিশাল সিটি কর্পোরেশন এর বিএনপি দলীয় সাবেক প্রয়াত মেয়র আহসান হাবিব কামালের ছেলে কামরুল আহসান রুপনের নির্বাচনী কার্যক্রম চলছে বেশ নিরবেই। জানাগেছে তিনি এবার বরিশাল সিটি কর্পোরেশন বিসিসি’র মেয়র পদে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশ গ্রহন করবেন। নগর বিএনপির অভ্যন্তরীণ কোন্দল সাথে আঃলীগের প্রার্থীর তালিকা না থাকার মতো এমন সুযোগ কাজে লাগাতেই তিনি আটঘাট বেধে নেমেছেন বলে জানা যায়।
দলটি যদি শেষ পর্যন্ত নির্বাচনে অংশে নেয়-ই, তাহলে মেয়র প্রার্থী কে হতে পারে, তা নিয়ে বেশ আলোচনা আছে রাজনৈতিক সহ প্রায় সকল মহলে।বিগত দিনে বরিশাল সিটি করপোরেশন ও বরিশাল সদর আসনে নির্বাচন এলে বিএনপির প্রার্থী কে হবেন, তা নিয়ে খুব বেশি আলোচনার সুযোগ ছিল না। কারণ, এ দুটি পর্যায়েই প্রার্থী ছিল নির্ধারিত। সিটিতে হয় মজিবর রহমান সরোয়ার, না হয় আহসান হাবিব কামাল। আবার সদর আসনে সংসদ নির্বাচনে মজিবর রহমান সরোয়ারই ছিলেন একক প্রার্থী। কিন্তু গেল পাঁচ বছরে কীর্তনখোলা নদীতে অনেক জল গড়িয়েছে, তেমনি এই নদীতীরের শহর বরিশালে বিএনপির রাজনীতিতেও নেতৃত্বের প্রভাব-প্রতিপত্তিতে এসেছে ব্যাপক পরিবর্তন। সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র আহসান হাবিব কামাল গত বছর বার্ধক্যজনিত কারনে মারা গেছেন। আর বরিশালে বিএনপির রাজনীতির একচ্ছত্র আধিপত্য হারিয়েছেন মজিবর রহমান সরোয়ার। ফলে সাধারণ ভোটারদের কৌতূহল যতটা না ভোট নিয়ে, তার চেয়ে বেশি নির্বাচনী রাজনীতিতে বিএনপির হাল ধরার মানুষটি কে হবেন, তা নিয়ে রয়েছে ব্যপক গুনজন।বিএনপির মধ্যে আলোচনায় মজিবর রহমান সরোয়ার এর পাশাপাশি সাংগঠনিক সম্পাদক বিলকিস জাহান শিরিন, এবায়দুল হক চাঁন,বিসিসি’র ১৮ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর বরিশাল মহানগর বিএনপির সদস্য সচিব এ্যাড:মীর জাহিদুর কবীর জাহিদ তবে এরা দলীয় সিদ্ধান্তর বাইরে যাবে না বলেও নিশ্চিত হওয়া গেছে।আর সিটি নির্বাচন দলীয় কোন বিষয় না হওয়ায় এ সুযোগ টিকে কাজে লাগাচ্ছেন সাবেক প্রয়াত মেয়র আহসান হাবিব কামাল পুত্র কামরুল আহসান রুপন বলেও রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করছেন৷ একক আধিপত্য বিস্তার রোধে দলটির কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দরাও নতুন ক্লিন ইমেজের ব্যক্তিদের প্রাধান্য দেবে বলেও জানা গেছে।

বিশ্বস্ত সূত্রে জানা গেছে,বিএনপিদলীয় সাবেক মেয়র আহসান হাবিব কামালের ছেলে মো. কামরুল আহসান রুপন বরিশাল সিটি করপোরেশন (বিসিসি) নির্বাচনে মেয়র প্রার্থী হচ্ছেন। কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের গ্রীনসিগনাল পেয়েই আটঘাট বেধে মাঠে নেমে পড়েছেন। বরিশাল সিটির প্রায় প্রতিটি ওয়ার্ড থেকে শুরু করে রাজনৈতিক মহলগুলোও তাকে বেশ সমর্ধন দিচ্ছেন ক্লিন ইমেজের নতুন নেতৃত্বের প্রয়োজন থেকেই।এছাড়াও দলের বৃহৎ একটি অংশ রয়েছে তার দখলে তার পিতা সাবেক প্রয়াত মেয়র আহসান হাবিব কামালের অনুসারী সহ সুশীল সমাজ। সরেজমিনে তার প্রার্থী হবার বিষয় টি বেশ আলোড়ন তৈরি করলে এ বিষয় নিয়ে অনুসন্ধান শেষে কথা বলা হয় সম্ভাব্য বিসিসি’র আসন্ন নির্বাচনে মেয়র পদের প্রার্থী কামরুল আহসান রুপনের সাথে। তিনি বৃহস্পতিবার প্রতিবেদকের সাথে তার মেয়র প্রার্থী হবার বিষয় অনেকটাই নিশ্চিত করেছেন।তবে বিএনপি থেকে মনোনয়ন চাইবেন নাকি সতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করবেন তা তিনি সুস্পষ্ট ভাবে না বললেও আর একটু অপেক্ষা করতে বলেন। বিসিসি নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর পরই তিনি কার্যক্রম পরিচালনায় আরো গতিশীল করবেন৷ তবে তিনি যে কোন ভাবেই আসন্ন সিটি নির্বাচনে মেয়র পদে যে শক্তপোক্ত অবস্থান তৈরী করে মাঠে নেমেছেন তার অনেকটাই ইঙ্গিত পাওয়া যায় সিটির প্রায় প্রতিটি ওয়ার্ডের বিভিন্ন এলাকার সাধারণ জনগনের সাথে কথা বলে।এ জন্য মানসিক প্রস্তুতি নিয়েছেন। সিটি কর্পোরেশন এর নির্বাচন যেহেতু দলীয় কোন নির্বাচন নয় স্থানীয় সরকারের সে কারনে এখানে যে কেউই এই অবহেলিত বরিশাল সিটির উন্নয়নের স্বার্থে জনগনের প্রয়োজনে নির্বাচনে অংশ গ্রহন করতে পারে।দলীয় বিষয় তিনি বলেন বিএনপিতে তাঁর এখন কোনো পদ নেই। তবে বিএনপির সমর্থক হিসেবে নয় বরিশালের সন্তান হিসেবে তিনি মনে করেন একটা সিটির নাগরিকদের সকল চাহিদা সুযোগ সুবিধা নিশ্চিত করতে দলের থেকেও যোগ্যতার প্রয়োজনীয়তা বেশী।

বিএনপি সহ জনগনের অভিযোগ সরকার দিনের ভোট যে রাতে করে এটার প্রমাণ ও পাওয়া যাবে এবার আসন্ন সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে, তাই এটা প্রমাণ করতেই তিনি মেয়র প্রার্থী হবেন। রুপন আরও বলেন, বরিশালের প্রেক্ষাপট ভিন্ন। মানুষ মেয়র পদে পরিবর্তন চায়। কেন পরিবর্তন চায়, তা ভোট-বিপ্লবে বোঝা যাবে।
জানা গেছে, কেন্দ্রীয় ছাত্রদলে সুলতান সালাউদ্দিন টুকু-আমিরুল ইসলাম আলীমের নেতৃত্বাধীন কমিটির সদস্য ছিলেন রুপন। বিসিসির নির্বাচিত তৃতীয় মেয়র প্রয়াত আহসান হাবিব কামালের ছেলে তিনি। কামাল দলের সবশেষ কেন্দ্রীয় মৎস্যজীবী সম্পাদক পদে ছিলেন। এ ছাড়া দলের শহর, মহানগর ও দক্ষিণ জেলা শাখার সভাপতি ছিলেন।রুপন জানান,দল এবং জনগনের স্বার্থে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে নৌকার বিপক্ষে সরকারের ভোট কারচুপি করে কিনা তা প্রকাশ্য হবে আসন্ন সিটি নির্বাচনে। রুপনের এ প্রার্থিতা নিয়ে আওয়ামী লীগ-বিএনপি দুই দলেই নানা গুঞ্জন দেখা দিয়েছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন ...

এই বিভাগের আরো সংবাদ...
© All rights reserved © ২০২৩ স্মার্ট বরিশাল
EngineerBD-Jowfhowo