২৫শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ দুপুর ১:১১

বাংলা নববর্ষকে সামনে রেখে রং তুলিতে ব্যস্ত মৃৎশিল্পীরা

বরিশাল অফিস:
  • আপডেট সময়ঃ রবিবার, এপ্রিল ৯, ২০২৩,
  • 53 পঠিত

বাংলা নববর্ষ বাঙালি সংস্কৃতির সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িত। বাংলাদেশের প্রতিটি গ্রামগঞ্জে, শহরে-বন্দরে নববর্ষ অত্যন্ত আনন্দণ্ডউল্লাসের সঙ্গে উদযাপিত হয়ে থাকে। শিশু-যুবা-বৃদ্ধসহ সব বয়সের সব শ্রেণি-পেশার সব সম্প্রদায়ের জনগণ এ উৎসবমুখর দিনটি অতি আগ্রহের সঙ্গে উদযাপন করে থাকে। এ উৎসবে প্রধান অনুষঙ্গ বৈশাখী মেলা। এ ছাড়া আমানি উৎসব, হালখাতা, গাজনের গান, গাঙ্গিখেলা, ঘোড়ার দৌড় ইত্যাদি গ্রামীণ অনুষ্ঠান বিভিন্ন অঞ্চলভেদে এখনো উদযাপিত হয়।

দেশের প্রাচীনতম শিল্পের মধ্যে মৃৎশিল্প একটি। আর এই প্রাচীনতম শিল্পের কারিগরেরা বাংলা নববর্ষ ১৪৩০ বৎসর আগামন উপলক্ষে এখন ব্যস্ত সময় পার করছেন। বরিশালের বাকেরগঞ্জে কুমার বা পাল নামে পরিচিত পাড়াগুলোতে এখন মাটির তৈরি বিভিন্ন রকমের পণ্য নানান রঙে রং তুলির কাজ শেষের দিক। যুগ যুগ ধরে এ পেশার সঙ্গে জড়িত কারিগররা তাদের গভীর ভালোবাসা আর মমতা দিয়ে সুনিপুন হাতের বিভিন্ন কারুকাজের মাধ্যমে মাটি দিয়ে তৈরি করেন নানা তৈজসপত্র।

এখন বাংলা নববর্ষকে ঘিরে নির্ঘুম ব্যস্ত সময় পার করছে বাকেরগঞ্জের মৃৎশিল্পীরা। পহেলা বৈশাখ বাঙালির নববর্ষ। নববর্ষ উপলক্ষে দেশের বিভিন্ন দর্শনীয় স্থানে বসে বর্ষবরণ মেলা। সেই মেলায় চাহিদা থাকে নানা রকমের খেলনা, মাটির জিনিসপত্রের। মেলাকে দৃষ্টিনন্দন করতে মৃৎশিল্পীরা নিজের হাতে নিপুণ কারুকাজে মাটি দিয়ে তৈরি করতেন শিশুদের জন্য রকমারি পুতুল, ফুলদানি, রকমারি ফল, হাঁড়ি, কড়াই, ব্যাংক, বাসন, থালা, বাটি, হাতি, ঘোড়া, বাঘ, টিয়া, ময়না, ময়ূর, মোরগ, খরগোশ, হাঁস, কলস, ঘটি, চুলা, ফুলের টবসহ মাটির বিভিন্ন তৈজসপত্র।

আধুনিক প্রযুক্তির উন্নয়নের ফলে মাটির তৈরি এসব জিনিসের বদলে বাজার দখল করছে প্লাস্টিক, অ্যালুমিনিয়াম, স্টিল ও সিরামিকসহ অন্য সব সামগ্রী। তাই আধুনিক প্রযুক্তির তৈজসপত্রের সঙ্গে প্রতিযোগিতায় টিকতে না পেরে মাটির তৈরি অনেক পণ্যই হারিয়ে গেছে। কিন্তু মাটির তৈরি কিছু তৈজসপত্র এখনো পুরোপুরি হারিয়ে যায়নি। শহরবাসীর দালান-কোটা সাজাতে মাটির তৈরি নানা পট-পটারি, ফুলদানি ও বাহারি মাটির হাঁড়ির কদর রয়েছে এখনো।

জানা যায়, গেল ২৫ বছর আগেও বাকেরগঞ্জ উপজেলায় মৃৎশিল্পের দাপট ও কদর দুটোই ছিল। তখন উপজেলার কলসকাঠি ও নিয়ামতি ইউনিয়নে প্রায় এক হাজার পরিবার মাটির জিনিসপত্র তৈরি করে অত্যন্ত ব্যস্ত সময় পার করত।

কিন্তু বর্তমানে এ উপজেলায় প্রায় পাঁচ শত পরিবার মৃৎশিল্পের কাজের সঙ্গে সম্পৃক্ত থেকে জীবন-জীবিকা নির্বাহ করছে। আগের মতো চাহিদা আর পারিশ্রমিকের ন্যায্যমূল্য না থাকায় এ পেশার লোকজন অত্যন্ত দুঃখ-দুর্দশা আর হতাশার মধ্যে দিন কাটাচ্ছে। দীর্ঘদিন ধরে এ পেশায় কাজ করার অভিজ্ঞতা থাকায় অন্য পেশায় তেমন খাপ খাওয়াতে পারছেন না তারা। কম লাভ জেনেও শুধু পারিশ্রমিকের আসায় বাপ-দাদার পুরানো ঐতিহ্য ধরে রাখতে এখনো মাটি দিয়ে তৈরি করছেন বিভিন্ন ধরনের হাঁড়ি, সরা, কলস, বাসন, মুড়ি ভাজার খোলা, কোলা, ভাটি, পিঠা তৈরির খাঁজ, জালের কাঠি, মাটির ব্যাংক ও জলকান্দা ইত্যাদি।

বাকেরগঞ্জ উপজেলার কলসকাঠী ও নিয়ামতি ইউনিয়নের মহেশপুর ৬ নং ওয়ার্ড,খাস মহেশপুর,ডাল মারা, রামনগর গ্রামগুলোর কুমারপল্লীতে ঢুকলেই চোখে পড়ে নানান রঙের মাটির তৈরি তৈজসপত্র। বাকেরগঞ্জ বরগুনা আঞ্চলিক সড়কের মহেশপুর বাজার সংলগ্ন কুমার পল্লীতে সড়কের দুই পাশে গড়ে উঠেছে মাটির তৈরি বিভিন্ন রকমের পণ্যের বাজার। স্থানীয়রা কুমারপল্লীর ছোট ছোট দোকান থেকে তাদের পছন্দের সামগ্রী ক্রয় করছেন। দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে পাইকারেরা আসছেন প্রতিদিন কুমার পল্লীতে। তাদের চাহিদা ও পছন্দের মাটির তৈরি পণ্য ক্রয় করে নিচ্ছেন। এই কুমার পল্লী থেকে তারা দেশের বিভিন্ন জেলা উপজেলায় সড়ক ও নৌপথে পরিবহনজাত করছেন তাদের ক্রায় করা পন্য।

মাটি সোনার চেয়েও খাঁটি। মাটির সামগ্রীতে মানুষের হাসি-কান্না, সুখ-দুঃখের অনুভূতি, প্রেম-বিরহের নানা দৃশ্যপট, মনোমুগ্ধকর ছবি হাতের স্পর্শে ফুটিয়ে তুলতেন শিল্পীরা। অথচ আজ উপজেলা বিভিন্ন এলাকায় এখন পুঁজির অভাবে হারিয়ে যাচ্ছে এখানকার মৃৎশিল্প। এই পেশায় এখন ভর করেছে অভাব-অনটন। মেলা-পার্বনেও তেমন চাহিদা নেই মাটির তৈজসপত্রের। তবে কিছু হোটেল-মিষ্টির দোকানে এবং সনাতন ধর্মাবলম্বীদের পূজায় এখনও প্রয়োজন হয় মাটির সামগ্রীর। পহেলা বৈশাখে মাটির সরাইয়ে (সানকি) তে পান্তাভাত খাওয়ার রীতিও চালু আছে।

উপজেলার নিয়ামতি এলাকায় মৃৎশিল্পের সঙ্গে এখনো জড়িত রয়েছে প্রায় ৪ শত পরিবার। তারা বিভিন্ন উৎসবসহ মাটির জিনিসপত্র তৈরি করে জীবিকা নির্বাহ করেন এখনো। তাই এখানে পুরুষ মৃৎশিল্পীর পাশাপাশি নারীরাও সমানতালে কাজ করছেন।

নিয়ামতির মহেশপুরের মৃত রাধাশ্যাম পালের পুত্র বিমল পাল জানান, প্রায় দুইশত বছর আগে থেকে বাপ দাদার আমল হতেই মৃৎশিল্পীর কাজ চলে আসছে। বর্তমানে বাজারে চাহিদা কম পুঁজি সংকট মহাজনের কাছ থেকে চড়া মূল্যে লোন নিয়ে এখন আর আগের মত ব্যবসা থাকেনা। বছর শেষে মহাজনকে লোন দিয়ে নিজেদের সংসার চালানো কষ্টসাধ্য হয়ে পড়ে।

রামনগর গ্রামের শ্যামল পালের পুত্র মৃৎশিল্পী স্বপন পাল জানান, বর্ষা মৌসুমে আমরা চরম ভোগান্তিতে পড়ি। কাঁচামাল রোদে শুকাতে হয়। বারবার বৃষ্টি আসাতে তেমন শুকানো যায় না। বাজারও থাকে খুব খারাপ তেমন বেচাকেনাও হয় না। অর্ধ হারে অনাহারে আমাদের জীবন চলে। তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে আরো জানান, কুমোররা কীভাবে বেঁচে আছে, তারা কী তাদের পারিশ্রমিক অনুযায়ী ন্যায্যমূল্য পায় কিনা এ খোঁজখবর রাখার কেউ নেই। কেউ জানতেও চান না আমাদের সুখ-দুঃখ, সুবিধা-অসুবিধার কথা। সরকার এর পক্ষ থেকেও কোন সহযোগিতা পাচ্ছি না আমরা।

সরকার সংশ্লিষ্টরা যদি এ পেশাকে বাঁচিয়ে রাখতে এখনই যথাযথ প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ না নেয়, তাহলে একসময় মৃৎশিল্পটি বন্ধ হয়ে যাবে। মৃৎশিল্পকে বাঁচিয়ে রাখতে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেন তারা। বাকেরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সজল চন্দ্র শীল জানান, উপজেলার মৃৎশিল্প পরিবারগুলোর খোঁজখবর নিয়ে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হবে।

 

সংবাদটি শেয়ার করুন ...

এই বিভাগের আরো সংবাদ...
© All rights reserved © ২০২৩ স্মার্ট বরিশাল
EngineerBD-Jowfhowo